ক্ষেপণাস্ত্র পরীক্ষা নিয়ে যুক্তরাষ্ট্র অতিরিক্ত প্রতিক্রিয়া দেখাচ্ছে: পিয়ংইয়ং

0
45

উত্তর কোরিয়ার সাম্প্রতিক ক্ষেপণাস্ত্র পরীক্ষা নিয়ে যুক্তরাষ্ট্র অতিরিক্ত প্রতিক্রিয়া দেখাচ্ছে বলে মন্তব্য করেছে পিয়ংইয়ং। বার্তা সংস্থা এএফপির প্রতিবেদনে এ তথ্য জানানো হয়।

আজ বৃহস্পতিবার উত্তর কোরিয়ার পক্ষ থেকে এ মন্তব্য করা হয়। একই সঙ্গে ওয়াশিংটনের আলোচনার প্রস্তাবের আন্তরিকতা নিয়েও প্রশ্ন তোলে পিয়ংইয়ং।

গত মঙ্গলবার উত্তর কোরিয়া সাবমেরিন থেকে উৎক্ষেপণযোগ্য নতুন ধরনের ব্যালিস্টিক ক্ষেপণাস্ত্রের সফল পরীক্ষা চালায়। জাপান উপকূলের জলসীমা বরাবর ক্ষেপণাস্ত্রটি ছোড়া হয়।

উত্তর কোরিয়ার রাষ্ট্রীয় গণমাধ্যম জানায় যে ব্যালিস্টিক ক্ষেপণাস্ত্রের পরীক্ষা চালানো হয়েছে, সেটি উন্নত নিয়ন্ত্রণ নির্দেশিকা–সংবলিত প্রযুক্তি দিয়ে তৈরি, যা এ ক্ষেপণাস্ত্রের গতিপথ অনুসরণের (ট্র্যাক) বিষয়কে কঠিন করে তুলতে পারে।

উত্তর কোরিয়ার নতুন ধরনের এ ব্যালিস্টিক ক্ষেপণাস্ত্রের পরীক্ষা নিয়ে বিশেষ করে, যুক্তরাষ্ট্র ও দক্ষিণ কোরিয়া তীব্র প্রতিক্রিয়া জানিয়েছে।

উত্তর কোরিয়ার পররাষ্ট্র মন্ত্রণালয়ের এক মুখপাত্র জানান, তাঁদের দেশের আত্মরক্ষার ব্যবস্থা জোরদারের অংশ হিসেবে মধ্য ও দীর্ঘমেয়াদি পরিকল্পনার আলোকে চলতি সপ্তাহে সাবমেরিন থেকে উৎক্ষেপণযোগ্য একটি নতুন ব্যালিস্টিক ক্ষেপণাস্ত্রের পরীক্ষা চালানো হয়। এ পরীক্ষা যুক্তরাষ্ট্র বা অন্য কোনো দেশকে লক্ষ্যবস্তু করে চালানো হয়নি।

উত্তর কোরিয়ার পররাষ্ট্র মন্ত্রণালয়ের মুখপাত্র জানান, ওয়াশিংটন এ পরীক্ষাকে জাতিসংঘের নিরাপত্তা পরিষদের প্রস্তাবের লঙ্ঘন হিসেবে অভিহিত করেছে। একই সঙ্গে ওয়াশিংটন এ পরীক্ষাকে আঞ্চলিক শান্তি-স্থিতিশীলতার জন্য হুমকি হিসেবে আখ্যায়িত করেছে। এ পরীক্ষাকে চরম উসকানিমূলক পদক্ষেপ হিসেবে বর্ণনা করেছে ওয়াশিংটন।

উত্তর কোরিয়ার নতুন ব্যালিস্টিক ক্ষেপণাস্ত্রের পরীক্ষার বিষয়টি নিয়ে যুক্তরাষ্ট্র ও যুক্তরাজ্যের অনুরোধে গতকাল বুধবার জাতিসংঘের নিরাপত্তা পরিষদে বৈঠক হয়।

সাম্প্রতিক সময়ে উত্তর কোরিয়া হাইপারসনিক ও দূরপাল্লার ক্রুজ ক্ষেপণাস্ত্রের পাশাপাশি বিমানবিধ্বংসী অস্ত্রেরও পরীক্ষা চালায়। কঠোর আন্তর্জাতিক নিষেধাজ্ঞা উপেক্ষা করেই উত্তর কোরিয়া তার পরমাণুসহ অন্যান্য অস্ত্রের কর্মসূচি চালিয়ে যাচ্ছে। বিশেষ করে, ব্যালিস্টিক ক্ষেপণাস্ত্র ও পারমাণবিক অস্ত্রের পরীক্ষা চালানোর ব্যাপারে উত্তর কোরিয়ার ওপর জাতিসংঘের নিষেধাজ্ঞা রয়েছে।

ক্রুজ ক্ষেপণাস্ত্রের চেয়ে ব্যালিস্টিক ক্ষেপণাস্ত্র বেশি হুমকিস্বরূপ হিসেবে বিবেচিত। কারণ, ব্যালিস্টিক ক্ষেপণাস্ত্র অধিক শক্তিশালী ‘পেলোড’ (রকেটচালিত বিস্ফোরক) বহন করতে পারে। দূরপাল্লার এ ক্ষেপণাস্ত্র দ্রুত উড়তে পারে।

LEAVE A REPLY

Please enter your comment!
Please enter your name here